মেনু নির্বাচন করুন

কৃত্রিমপ্রজননকেন্দ্র

**গরুর বিভিন্ন রোগবালাই ও
চিকিৎসা**
তড়কা রোগ (উবামড়কি/গলি/ধড়কা/
তীরাজ্বর):
কারণ :
গ্রাম পজেটিভ
ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণে হয়।
বর্ষাকালের
স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে এ রোগ
বেশি হয়। গরু, ছাগল, মহিষ ও
ভেড়ার এ রোগ হয়।
লক্ষণ :
-দেহের লোম খাড়া হয়।
-দেহের তাপমাত্রা ১০৬-১০৭
ডিগ্রি ফারেনহাইট পর্যন্ত হয়।
-দেহে কাঁপুনি ওঠে, শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত ও
গভীর হয়।
-নাক, মুখ ও মলদ্বার দিয়ে রক্তক্ষরণ
হতে পারে।
-পাতলা ও কালো পায়খানা হয়।
-ঘাড়ের পিছনে চামড়ার নিচে তরল
পদার্থ জমে ফুলে ওঠে
-ক্ষুধামন্দা, পেট ফাঁপা ও পেটের
ব্যথা হয়।
-লক্ষণ প্রকাশের ১-৩ দিনের মধ্যে পশু
ঢলে পড়ে এবং মারা যায়।
-মৃত্যুর সাথে সাথে পেটফুলে এবং রক্ত
জমাট বাঁধে না।
প্রতিরোধ :
-প্রথম ৬ মাস
বয়সে পশুকে টিকা দিতে হবে।
পরে প্রতি বছর
বয়সে একবার করে টিকা দিতে হবে
-সুস্খ পশুকে পৃথক রাখতে হবে।
-পশুর মল, রক্ত ও মৃতদেহ মাটির
নিচে পুঁতে ফেলতে হবে
-পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন জীবাণুমুক্ত
শুকনা স্খানে লালন-পালন
করতে হবে।
চিকিৎসা :
-পেনিসিলিন/বাইপেন ভেট/
জেনাসিন ভেট/এম্পিসিন ভেট
ইনজেকশন দেয়া যেতে পারে। এ
ছাড়াও স্ট্রেপটোমাইসিন/
এন্টিহিস্টাভেট ইনজেকশন
দেয়া যেতে পারে।
খুরারোগ (বাতা, জ্বারা, তাপা, এসো,
খুরাপাকা):
কারণ :
পিকরনা নামক ভাইরাস দ্বারা এ রোগ
হয়। জোড়া খুরবিশিষ্ট পশু
যেমনন্ধ গরু, ছাগল, মহিষ,
ভেড়া ইত্যাদিতে এ রোগ হয়। বর্ষার
স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে এ রোগ
বেশি হয়।
লক্ষণ :
-মুখে, জিহ্বায় ও খুরে ফোস্কা পড়ে
-ফোস্কা ফেটে ঘা হয়।
-নাক ও মুখ দিয়ে লালা ঝরে।
-পশু খুঁড়িয়ে হাঁটে
-পশু শক্ত কিছু খেতে পারে না।
-ওলানের বাঁটে ক্ষত ও দুর্গìধ হয় এবং কষ
ঝরে
-ক্রমে পায়ের খুর খসে পড়ে।
-পশু দুর্বল হয়ে পড়ে।
-দেহের তাপমাত্রা বাড়ে
-গাভীর দুধ কমে যায়।
প্রতিরোধ :
তড়কা রোগের প্রতিরোধ ব্যবস্খা অবলম্বন
করতে হবে।
চিকিৎসা :
-হালকা গরম পানির সাথে পটাশিয়াম
পারম্যাঙ্গানেট
মিশিয়ে ক্ষতস্খানে দৈনিক ২-৩ বার
ধুয়ে দিতে হবে।
-সোহাগা (বোরাক্স) বা বরিক পাউডার
মধু বা গ্লিসারিনের
সাথে মিশিয়ে ক্ষতস্খানে লাগাতে হবে।
-পশুকে এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন
(প্রোনেপেন/এসপিভেট/
ডায়াডেট/ সুমিডভেট/জেনসিনভেট)
দিতে হবে।
-জ্বর কমানোর জন্য ডিক্লোডেট
খাওয়াতে হবে।
-নারকেল তেল ও তারপিন তেল ৪:১
অনুপাতে মিশিয়ে ক্ষতে লাগাতে হবে।
-পশুকে নরম খাদ্য খাওয়াতে হবে।
সাবধানতান্ধ :
-
কাদামাটি বা পানিতে পশুকে রাখা যাবে না।
-খোসকা পাতা দিয়ে ক্ষতস্খান
ঘষা যাবে না।
বাদলা রোগ (কালো, জহরত, সুজওরা,
কৃষজঙ্গ রোগ):
কারণ :
গ্রাম পজেটিভ ব্যাকটেরিয়া দ্বারা হয়।
গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়ার ৬ মাস
থেকে দু’বছর বয়সে এ রোগ বেশি হয়।
দেহের ক্ষত ও
মলের মাধ্যমে সংক্রমিত হয়।
লক্ষণ :
-পশুর দেহের মাংসপেশি ফুলে যায়
এবং গায়ের চামড়া খসখসে হয়।
-ফোলা স্খানে গরম অনুভূত হয় এবং হাত
দিলে চটচট শব্দ হয়।
-ফোলা স্খানে পচন ধরে এবং পশু মারাও
যেতে পারে
-দেহের তাপমাত্রা ১০৫-১০৭
ডিগ্রি ফারেনহাইট বাড়ে।
-কখনো পশুর পেট ফাঁপে এবং পশু
খোঁড়াতে থাকে।
-খাওয়া ও জাবর কাটা বìধ হয়
এবং হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়।
-দেহের পশম খাড়া হয়। পশু নিস্তেজ
হয়ে পড়ে।
-আক্রান্ত স্খানে কাটলে গাঢ় লাল
দুর্গìধযুক্ত ফেনা বের হয়।
প্রতিরোধ :
তড়কা রোগের পদ্ধতিতে রোগ
প্রতিরোধ করা যায়।
চিকিৎসা :
-পশুর শিরা বা ত্বকের
নিচে প্রতি কেজি দৈহিক ওজনের জন্য
১ হাজার
ইউনিট পেনিসিলিন ইনজেকশন
দিতে হবে।
অথবা ৩-৫ মিলিগ্রাম টেট্রাসাইক্লিন
ইনজেকশন দিতে হবে।
অথবা বাইপেনভেট/এমপিসিনভেট/
এন্টিহিস্টাভেট ইনজেকশন
দেয়া যেতেপারে।
ওলান ফোলা/প্রদাহ রোগ (ওলান পাকা,
ঠুনকো ইত্যাদি):
কারণ :
ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রমিত হয়ে এ
রোগ হয়। অস্বাস্খ্যকর
স্যাঁতসেঁতে বাসস্খান
এবং ময়লা হাতে দুধ দোহানো,
ওলানে আঘাত
প্রভৃতি কারণে রোগজীবাণু সংক্রমিত
হয়।
লক্ষণ :
-ওলান লাল হয়ে ফুলে যায়।
-ওলান শক্ত ও গরম হয়
এবং ওলানে ব্যথা হয়।
-দুধ ছানার মতো ছাকা ছাকা হয়।
-দুধের সাথে রক্ত বের হতে পারে।
-ওলান ও বাঁট নষ্ট হয়ে গাভীর দুধ বìধ
হয়ে যায়।
-দুধ উৎপাদন বìধ হয়।
প্রতিরোধ :
-পশু শুকনো ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন
স্খানে লালন-পালন করতে হবে।
-ওলান সর্বদা পরিষ্কার রাখতে হবে।
-হাত জীবাণুনাশক দিয়ে ধুয়ে দুধ দোহন
করতে হবে।
-ওলান গরম
হলে ঠাণ্ডা বা ঠাণ্ডা হলে গরম সেক
দিতে হবে।
চিকিৎসা :
-আক্রান্ত পশুকে জেনাসিনভেট/
এমপিসিন ভেট/ ক্লোফেনাক
ভেট/ এন্টিহিস্টাভেট ইনজেকশন
দিতে হবে।
-সরিষার তেল ও কর্পূর তেল
মিশিয়ে ওলানে মালিশ
করা যেতে পারে।
ডায়রিয়া/পাতলা পায়খানা/উদরাময়
রোগ:
কারণ :
ব্যাকটেরিয়া ও
প্রোটোজোয়া জাতীয় জীবাণু
দ্বারা হয়। বর্ষার
সময় দূষিত খড়, পচা লতাপাতা,
পচা পানি, পচা খাদ্য খেয়ে এ রোগ হয়।
লক্ষণ :
-ঘন ঘন পাতলা পায়খানা হয়।
-মুখ দিয়ে লালা ঝরে।
-মলের সাথে রক্ত বের হয়।
-পেটের ডান দিকে চাপ দিলে পশু
ব্যথা পায়।
প্রতিরোধ :
-পরিষ্কার টাটকা খাদ্য
খাওয়াতে হবে।
-বাচ্চা জন্মের পরই ২% আয়োডিন
দিয়ে নাভি মুছে দিতে হবে।
-জন্মের পর ২ ঘন্টার মধ্যে কলস্ট্রাম
সিরাপ খাওয়াতে হবে।
-জীবাণুমুক্ত বিশুদ্ধ
পানি খাওয়াতে হবে।
চিকিৎসা :
-স্যালাইন খাওয়াতে হবে।
-সালফা প্লাস ট্যাবলেট
খাওয়াতে হবে।
-কৃমিনাশক ওষুধ খাওয়াতে হবে।
নিউমোনিয়া:
কারণ :
বিভিন্ন জীবাণুর (ব্যাকটেরিয়া,
রিকেটশিয়া, ভাইরাস)
সাথে এলার্জেন,
আঘাত, ক্লান্তি, ঠাণ্ডা লাগা,
বৃষ্টিতে ভেজা, স্যাঁতসেঁতে পরিবেশ,
আর্দ্র আবহাওয়া ইত্যাদি কারণে এ রোগ
হয়।
লক্ষণ :
-আক্রান্ত পশুতে প্রথমে অল্প জ্বর ও
কাশি এবং পরে ঘনঘন
কাশি দেয়।
-নাক ও মুখ দিয়ে সাদা সর্দি বের হয়।
-দ্রুত ও গভীর শ্বাস-প্রশ্বাস, কাশি ও
শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়।
-শ্বাস-প্রশ্বাসের সময় শব্দ হয়।
প্রতিরোধ :
-বৃষ্টি, ঠাণ্ডা, আর্দ্র ও
স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে পশু
রাখা যাবে না।
শুকনো ও গরম স্খানে রাখতে হবে।
চিকিৎসা :
পশুকে জেনাসিনভেট/ ওটেট্রাভেট/
কোট্রিমভেট
ইনজেকশন দিতে হবে। যেকোনো ধরনের
অস্বাভাবিক
আচরণ পশুর মধ্যে দেখলে উপজেলা পশু
চিকিৎসকের পরামর্শ
নেবেন।